একটি প্রেমের কবিতা

আমি একটি প্রেমের কবিতা লিখতে চেয়েছিলাম,
কবিতাটা নিজে থেকেই হতাশা আর
আক্ষেপের কথা বলতে থাকে।
ঝকঝকে সাদা অফসেটে
আমি ভালবাসার কথা লিখতে চেয়েছিলাম,
কিন্তু কাগজটা হয়ে যায় ক্ষোভে নীল
ঘাস মেঘ ফুল আকাশ সবই রক্তাক্ত লাল।

আমি একটা কবিতা লিখতে চেয়েছিলাম,
কবিতায় প্রকৃতি থাকবে
বৃষ্টি নদী পাখি আর তারারা থাকবে
কিন্তু কবিতার শব্দগুলো অজান্তেই এলোমেলো
তোমায় নিয়ে কবিতাটা শুধুই অন্যরকম হয়ে যায়।
কবিতাটা অভিজিৎ বলে চিৎকার করে ওঠে
প্রতিধ্বনি হয় – অনন্ত ওয়াশিকুর।

আমি শুধুই ভালবাসি বলতে চেয়েছিলাম
শব্দের ছন্দে প্রকৃতি মিশিয়ে প্রিয়তমার স্তুতি।
কিন্তু প্রেম আজ ভীত স্থবির
ভালবাসা কুন্ঠিত বিবর্তনের উল্টো স্রোতে,
কবিতা তাই আজ নিজেই সোচ্চার,
প্রতিবাদী হয়ে
আমার অক্ষমতার লজ্জা ঢাকে।

মেয়ে

মেয়ে

মেয়ে তুমি চুপ কেন?
মেয়ে তুমি কি ভাব? /
কোথায় হারাও? /
মেয়ে তুমি হাস কি? /
ভালবাস কি ঘাসফড়িং? /
শিশির ভেজা কচি পাতায় /
প্রজাপতির নাচন? /
মেয়ে তুমি কি গান গাও? /
কবিতা পড় কি? /
নাকি কবিতার নায়িকা হয়েই /
তোমার সব সুখ? /
তুমি কি স্বপ্ন দেখ মেয়ে? /
শান্ত নদীর পাড়, ঘাসের গালিচা আর /
একটি ঝাকড়া অশ্বত্থ গাছ? /
মেয়ে তুমি কেন কাঁদ? /
চোখের জলে কেন ভাসাও /
দুঃখের নৌকা? /

মেয়ে তুমি উচ্ছল /
চঞ্চল চপল জীবনে ভরপুর। /
তুমি আনন্দের শোভাযাত্রা। /
মেয়ে তুমি স্বর্গলোকের রাজকন্যা /
চোখের ইশারায় /
সকাল থেকে সন্ধ্যা নামাও। /
স্বপ্নেই শুধু ধরা দাও মেয়ে /
দিনের সকল ক্লান্তি শেষে /
ছড়িয়ে দাও আলতো ভালবাসা। /
সাদাকালো স্বপ্নগুলো /
রঙিন করে দাও।।

আমায় ছুটি দাও

আমায় ছুটি দাও

আমায় ছুটি দাও সবুজ মেঘের দল /
আমি মহামানব হতে চাই না /
কালের গর্ভে করতে চাইনা জ্বলজ্বলে রেখাপাত /
চাইনা কোন অসামান্য অতিমানবীয় কীর্তি /
আমি খুব সাধারণ মানুষ হতে চাই।

প্রিয় মানুষগুলোর দুঃস্বপ্নগুলোকে ভাগ করতে চাই /
ধরে রাখতে চাই প্রিয় মূহুর্তগুলোকে /
কষ্ট পেলে চিৎকার করে কাঁদতে চাই /
সবকিছু তছনছ করে দিতে চাই রাগে দুঃখে ক্ষোভে /
স্বার্থপর হতে চাই /
আত্মকেন্দ্রিক হতে চাই /
শুধু ভালবাসার মানুষগুলোকে নিয়ে ভাল থাকতে চাই।

আমায় ছুটি দাও সবুজ মেঘের দল /
আমি আত্মত্যাগের মশাল হতে চাই না /
আমি একজন সাধারণ মানুষ হতে চাই।।

ডানা ভাঙ্গা প্রজাপতি

সাতটি সাগর দিলাম তোমায়
দিলাম আকাশের সব নীল
শরৎএর পেজা পেজা মেঘ গুলো
বালুচরের সব কাশফুল।

তবুও তোমার ঠোঁটে অব্যক্ত ব্যথা
তবুও জল তোমার চোখের কোনে
অদেখাই থেকে যায় বিকেলের সোনালী রোদটা
দিন শেষে পড়ে থাকে
এক বুক অসহ্য ভালোবাসা
আর একটি ডানা ভাঙ্গা প্রজাপতি।।